1. admin@protidinshikhsha.com : protidinshiksha.com :
বুধবার, ২১ অক্টোবর ২০২০, ০৫:১৩ পূর্বাহ্ন

প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের প্রজ্ঞাপনে মর্মাহত বাংলাদেশ কিন্ডারগার্টেন এসোসিয়েশন

  • প্রকাশিত মঙ্গলবার, ১১ আগস্ট, ২০২০
  • ৩৩৭ বার পড়া হয়েছে

শিক্ষা ডেস্কঃ বিগত ৯ আগষ্ট ২০২০ ইং তারিখে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় এর শাখা- ২ থেকে প্রচারিত একটি প্রজ্ঞাপনের প্রতি আমাদের দৃৃষ্টি আকৃষ্ট হয়েছে। আমরা এ প্রজ্ঞাপনের জোরালো প্রতিবাদ করছি এবং যতদ্রুত সম্ভব এর প্রত্যাহার দাবি করছি।
প্রাথমিক শিক্ষার সাথে সংশ্লিষ্ট কিন্ডারগার্টেন স্কুলসহ সকল শিক্ষা
প্রতিষ্ঠানের পরিচালক ও শিক্ষকবৃন্দ নিশ্চয়ই এ প্রজ্ঞাপনটি মনোযোগ দিয়ে পড়েছেন। আমাদের জানামতে বর্তমান প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাননীয় সিনিয়র সচিব জনাব আকরাম আল হাসান এর দায়িত্ব গ্রহণের পর প্রাথমিক শিক্ষা অনেক এগিয়ে গেছে। তার গৃহীত যুগান্তকারী বিভিন্ন পদক্ষেপ প্রাথমিক শিক্ষা ব্যবস্থাকে অনেক উচ্চতায় নিয়ে গেছে। এ অবস্থায় এরকম একটি প্রজ্ঞাপন আমাদের মর্মাহত করেছে।
আজকের শিশু আগামীর সম্পদ। দেশের আগামী নেতৃত্ব ন্যস্ত হবে
প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিশুদের হাতে। শিক্ষায় শতভাগ সাফল্য বাংলাদেশের একটি বড় অর্জন। এই অর্জন স্বীকৃত সারাবিশে^। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে সম্ভব হয়েছে এমন অর্জন। আমরা বাংলাদেশের কিন্ডারগার্টেন স্কুলের ৬ লক্ষ শিক্ষক গর্বিত এই জন্য যে, এই অর্জনের অংশীদার আমরাও।
বিগত মার্চ মাসে করোনা মহামারীর জন্য সারাদেশ লকডাউনে চলে যায়। তখন সরকারের নির্দেশে সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের সাথে উদ্যোগে পরিচালিত কিন্ডারগার্টেন স্কুলগুলিও বন্ধ হয়ে যায়। এই বন্ধ দীর্ঘায়িত হওয়ায় কিন্ডারগার্টেন স্কুল শিক্ষক-কর্মচারী-পরিচালক সকলে ভয়ানক আর্থিক সংকটে পড়ে যায়। এ সংকট থেকে উত্তরনের জন্য নানাভাবে তারা সরকারের কাছ থেকে আর্থিক অনুদান বা প্রণোদনা চায়।
আমরা কিন্ডারগার্টেন এসোসিয়েশনের ব্যানারে সংবাদ সম্মেলন, অবস্থান কর্মসূচি ও মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কাছে একাধিকবার স্মারকলিপি প্রদান করে সরকারের দৃষ্টি আকর্ষণের চেষ্টা করি এবং স্কুলগুলোকে বাঁচিয়ে রাখার জন্য সহজশর্তে ঋণ ও প্রণোদনা চাই।
কিন্তু দুর্ভাগ্য সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয় সেদিকে নজর না দিয়ে এমন একটি
প্রজ্ঞাপন জারি করেছে যাতে কিন্ডারগার্টেন স্কুলের শিক্ষাব্যবস্থা ব্যাহত ক্স ক্স হয়। এ করোনা সংকটে মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব ছিল, যে স্কুলগুলো বন্ধ হয়ে গেছে সেগুলোকে আর্থিক প্রণোদনা দিয়ে সচল রাখা, যাতে শিক্ষক-ছাত্র এবং শিক্ষা উদ্যোক্তা সকলে উপকৃত হয়। তা না করে মন্ত্রণালয় বিনা টিসিতে ছাত্র-ছাত্রীদের অন্য প্রতিষ্ঠানে ভর্তির হওয়ার যে সুযোগ সৃষ্টি করে দিয়েছেন তাতে কিন্ডারগার্টেন স্কুলগুলি আর্থিকভাবে আরো বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হবে।
যে মুহুর্তে বাংলাদেশ কিন্ডারগার্টেন এসাসিয়েশন প্রাথমিক
শিক্ষায় বিশেষ অবদানের জন্য কিন্ডারগার্টেন স্কুলগুলোকে বাঁচিয়ে
রাখার প্রাণপন চেষ্টা করছেন এবং এ প্রয়োজনে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী,
প্রাথমিক ও গণশিক্ষা প্রতিমন্ত্রী ও সিনিয়র সচিব সহ সংশ্লিষ্ট
সকলের নিকট ১০ দফা দাবি আদায়ের জন্য দেনদরবার করে যাচ্ছেন সে মুহূর্তে মন্ত্রণালয়ের এ প্রজ্ঞাপনটি বাংলাদেশের ৪০ হাজার কিন্ডারগার্টেন এর ৬ লক্ষাধিক শিক্ষক কর্মচারিকে ভয়ানকভাবে ব্যথিত করছে।
বাংলাদেশ কিন্ডারগার্টেন এসোসিয়েশন আশা করে যত দ্রুত সম্ভব এ
প্রজ্ঞাপনটি বাতিল ও প্রত্যাহার করা হোক এবং বন্ধ হয়ে যাওয়া স্কুলগুলোকে বাঁচিয়ে রাখার স্বার্থে যথাযথ উদ্যোগ গ্রহণ করা হোক।
বাংলাদেশ কিন্ডারগার্টেন এসাসিয়েশনের মহাসচিব মোঃ মিজানুর রহমান সরকার এক বিবৃতিতে এ দাবী করেন।

কাজী মোঃ সরোয়ার খান মনজু
সাংগঠনিক সম্পাদক(বিভাগীয়
বাংলাদেশ কিন্ডারগার্টেন এসোসিয়েশন

(মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ী নয়)

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো সংবাদ পড়ুন
২০২০ প্রতিদিন শিক্ষা কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত
প্রযুক্তি সহায়তায় মাল্টিকেয়ার

প্রযুক্তি সহায়তায় মাল্টিকেয়ার